র*ক্তশূন্যতা দূর করার ঘরোয়া উপায়

সাধারণত শরীরে থাকা র*ক্তের মধ্যে হিমোগ্লোবিনের পরিমাণ কমে গেলে র*ক্তশূন্যতা দেখা দিয়ে থাকে।এই র*ক্তশূন্যতা সাধারণত মেয়েদের বা মহিলাদের এবং বাচ্চাদের ক্ষেত্রে বেশিরভাগ দেখা দিয়ে থাকে। তবে ক্ষেত্রে একজন ডাক্তারের কাছে গিয়ে র*ক্তশূন্যতার পরিমাণ যেন নেওয়া উচিত। যাতে পরবর্তীতে সঠিক খাদ্য তালিকা এবং সঠিক ঔষধ খেয়ে র*ক্তস্বল্পতা খুব সহজে দূর করা যায়।

তবে আজকে আলোচনায় র*ক্তশূন্যতা দূর করার ঘরোয়া উপায় সম্পর্কে আলোচনা করার পাশাপাশি বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আলোচনা করা হয়েছে। যে বিষয়গুলো আপনি জানলে আপনার র*ক্ত শূন্যতা ঘরোয়া উপায় খুব সহজে দূর করতে পারবেন। তবে বিশেষ করে খাদ্য তালিকায় বিভিন্ন খাবার যোগ করা হয়েছে। অর্থাৎ যে খাবারগুলো র*ক্তশূন্যতা দূর করার ক্ষমতা রাখে।

র*ক্তশূন্যতা দূর করার ঘরোয়া উপায়

আমাদের শরীরে র*ক্তস্বল্পতার কারণে বিভিন্ন রকমের রোগ তৈরি হয়ে থাকে। যে রোগ গুলো মৃ*ত্যুর ঝুঁকি পর্যন্ত হতে পারে। শরীরের র*ক্তশূন্যতায় দুর্বলতা একটি সাধারন সমস্যা। তবে এটি ধীরে ধীরে কিভাবে প্রকোট আকার ধারণ করতে পারে। উল্লেখ্য একজন র*ক্তস্বল্পতায় ভোগা ব্যক্তির শ্বাসকষ্ট, শরীরে পানি আসা, গর্ভকালীন এবং প্রসব-পরবর্তী সংক্রমণের আশঙ্কা দেখা দিতে পারে।

এছাড়াও র*ক্তস্বল্পতার কারণে ক্তচাপ বৃদ্ধি পেতে পারে, প্রসব-পরবর্তী র*ক্তপাত হওয়ার ঝুঁকি বেড়ে যায়, দুগ্ধ উৎপাদন ব্যাহত হয়। তবে র*ক্তস্বল্পতা যদি প্রকট আকার ধারণ করে নেয় তাহলে অবশ্যই অতি জরুরিভাবে ডাক্তারের সাথে যোগাযোগ করা উচিত। তবে তার পূর্বে আপনি প্রাকৃতিকভাবে ঘরোয়া উপায় গুলো অবলম্বন করতে পারেন আপনার র*ক্তস্বল্পতা দূর করতে। তবে আজকের আলোচনায় র*ক্তস্বল্পতা দূর করা নিয়ে বিভিন্ন খাদ্যের নাম উল্লেখ করা হয়েছে।

র*ক্তশূন্যতা দূর করার ৫ অসাধারণ খাবার

আপনার যদি র*ক্তশূন্যতা থেকে থাকে। তাহলে ডাক্তারের কাছে গিয়ে আপনার র*ক্তশূন্যতার পরিমাণ জেনে নিন। এবং আমাদের দেওয়া উল্লেখিত নিচে পাঁচটি অসাধারণ খাবারের তালিকা উল্লেখ করা হয়েছে। যে আপনার র*ক্তশূন্যতা দূর করতে অনেক বেশি সাহায্য করবে। তাই নিচের তালিকা গুলো ভালোভাবে লক্ষ্য করুন।

পালং শাকঃ

আমাদের আশেপাশে বিভিন্ন ধরনের সবজি দেখতে পাই বা খেয়ে থাকি। কিন্তু পালং শাক খেলে শরীরে প্রচুর পরিমাণ এনার্জি উৎপাদিত হয়। এবং র*ক্তস্বল্পতা দূর করতে অনেক বেশি সহায়তা করে থাকে। পালং শাকে ক্যালসিয়াম, ভিটামিন এ, বি৯, ই, সি, বিটা কারটিন এবং আয়রন রয়েছে। তাই র*ক্তস্বল্পতা দূর করার পাশাপাশি শরীরে শক্তি বৃদ্ধির জন্য নিয়মিত পালং শাক খেতে পারেন।

বিটঃ

এই বিট আমাদের শরীরের র*ক্তে থাকা লোহিত কণিকার পরিমাণ বৃদ্ধি করে। এবং দেহে অক্সিজেন সরবারহ সচল রাখে। এছাড়াও এই বিট হচ্ছে আয়রন সমৃদ্ধ খাবার। যা খুব সহজেই হিমোগ্লোবিনের মাত্রা বাড়িয়ে দিতে পারে। তার র*ক্তস্বল্পতা দূর করতে এই খাবারগুলো খেতে পারেন।

টমেটোঃ

ইতিমধ্যে হয়তো জানতে পেরেছেন ভিটামিন সি সমৃদ্ধ খাবার গুলো র*ক্তশূন্যতা দূর করতে অনেক বেশি সাহায্য করে। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য ভিটামিন সি সমৃদ্ধ খাবার হচ্ছে টমেটো। এমনকি টমেটোতে পাওয়া যায় বিটা ক্যারটিন, ফাইবার, এবং ভিটামিন ই। তাই খুব বেশি না হলে প্রতিদিন অন্তত একটি করে টমেটো খাওয়ার চেষ্টা করুন।

ডালিমঃ

এই ডালিম শরীরে থাকা র*ক্তের প্রবাহ সচল রেখে দুর্বলতা, ক্লান্ত ভাব দূর করে থাকে। এবং এ ডালিম হচ্ছে প্রচুর পরিমাণে আইরন এবং ভিটামিন সি সমৃদ্ধ ফল। তাই র*ক্তশূন্যতা দূর করতে মাঝে মধ্যে ডালিম খাওয়ার চেষ্টা করুন।

চিনাবাদাম ও পিনাট বাটারঃ

চেষ্টা করুন চীনা বাদাম বা পিনাট বাটার খেতে। পিনার বাটার এবং চীনা বাদাম র*ক্তস্বল্পতা দূর করতে সাহায্য করে। প্রতিদিন এই খাবারগুলো খাওয়ার চেষ্টা করুন। যাতে খুব দ্রুত আপনার র*ক্তস্বল্পতা দূর হয়ে যায়।

র*ক্তশূন্যতার লক্ষণ ও তার প্রতিকার

সাধারণ দুর্বলতা, শ্বাসকষ্ট হওয়া, গর্ভকালীন এবং প্রসব পরবর্তী সংক্রমনে আশঙ্কা সৃষ্টি হওয়া, এবং শরীরে পানি হওয়া ইত্যাদি হচ্ছে র*ক্তশূন্যতার লক্ষণ। এছাড়া নির্দিষ্ট সময়ের আগেই শিশু প্রসব হওয়া। আরো বিভিন্ন লক্ষণ রয়েছে এই র*ক্তশূন্যতার। তবে জেনে রাখু*ন কিভাবে এই র*ক্তশূন্যতার প্রতিকার করা যায়।

আপনার র*ক্তশূন্যতা দূর করতে নিচে উল্লেখিত বিভিন্ন খাবারের তালিকা সম্পর্কে বিস্তারিত ধারণা নিতে পারেন। এবং প্রয়োজনীয় খাবারগুলো অবশ্যই সময় এবং নিয়ম করে খেতে পারেন। আশা করা যায় আপনার র*ক্তশূন্যতা খুব দ্রুত দূর হবে। আর যদি ঘরোয়া উপায় খাবার গুলো না খেয়ে খাবার র*ক্তশূন্যতা দূর হয় তাহলে ডাক্তারের শরণাপন্ন হতে পারেন।

র*ক্তশূন্যতা দূর করার ঘরোয়া উপায় গুলো কি

ঘরোয়া উপায়ে র*ক্তশূন্যতা দূর করতে বুঝায় আমাদের আশেপাশের বিভিন্ন প্রাকৃতিক খাবার গুলো খেয়ে। র*ক্ত শুন্যতা দূর করতে যে সকল ভিটামিন বা উপাদানের প্রয়োজন হয় সে সকল উপাদান তৈরি করতে প্রয়োজনীয় খাদ্যগুলো গ্রহণ করা। আজ এই খাদ্যগুলো আমরা ঘরে বসেই খুব সহজে খেয়ে নিতে পারি।

এক্ষেত্রে কোন ওষুধ গ্রহণ করার প্রয়োজন হয় না। র*ক্তশূন্যতা দূর করার জন্য নিচে অনেকগুলো খাদ্যের একটি তালিকা দেওয়া হয়েছে। আশা করি সেই সকল খাদ্য গুলো সম্পর্কে আমরা সকলেই পরিচিত। তাই ঘরোয়া উপায়ে র*ক্তস্বল্পতা দূর করার খাদ্য তালিকাটি দেখে নিন।

  • কলিজা
  • দুধ
  • মাছ
  • ফলমূল
  • খেজুর
  • চীনাবাদাম
  • টমেটো
  • শাক সবজি
  • ডাল
  • ডিম
  • সয়াবিন
  • বাদাম
  • সামুদ্রিক মাছ
  • কিশমিশ

র*ক্তশূন্যতা দূর করতে মধু খান

এই মধুতে অনেকটা পরিমাণ আয়রন থাকে। আর আমরা জানি এই মধু হচ্ছে সকল রোগের মহা ঔষধ। এক্ষেত্রেও আপনার র*ক্তস্বল্পতা দূর করতে রাতে ঘুমানোর পূর্বে এবং সকালে ঘুম থেকে উঠে এক থেকে দুই চামচ পর্যন্ত মধু খেতে পারেন। এছাড়া বিভিন্ন প্রক্রিয়ায় আপনি মধুকে বিভিন্নভাবে গ্রহণ করতে পারেন।

মেয়েদের র*ক্ত শূন্যতা দূর করার উপায়

বিশেষ করে মেয়েদের শরীরে র*ক্তশূন্যতার পরিমাণ বেশি দেখা দিয়ে থাকে। এসব শিশুদের ক্ষেত্রেও মাঝেমধ্যে র*ক্তশূন্যতা দেখা দিয়ে থাকে। তবে সঠিক চিকিৎসা নিলে র*ক্তশূন্যতা খুব অল্প সময়ের মধ্যেই দূর করা সম্ভব হয়। তবে র*ক্তশূন্যতা দূর করার সবথেকে সহজ উপায় হচ্ছে খাদ্য তালিকায় বিশেষ খাবার যুক্ত করা। তবে খাবার গুলো আপনার খাদ্য তালিকায় যুক্ত করা মোটেও কঠিন কোন কাজ নয়। জেনে রাখু*ন মেয়েদের র*ক্তশূন্যতা দূর করার উপায় সম্পর্কে।

  • যেসব খাবারের র*ক্তশূন্যতা দূর করার ক্ষমতা রয়েছে। সেসব খাবার গুলো প্রতিদিন নিয়মিত খাওয়ার চেষ্টা করুন।
  • আপেল, টমেটো, বেদানা, কলা, আঙ্গুর, কমলা, গাজর আপনি খেলে মেয়েদের বা যে কারোর র*ক্তশূন্যতা দূর করা সম্ভব হয়।
  • মেয়েদের র*ক্তশূন্যতা দূর করতে নিয়মিত আমলার জুস ও লাল বিটরুটের জুস খাওয়ার অভ্যেস গড়তে পারেন।
  • র*ক্তশূন্যতা দূর করতে গরু এবং খাসির অনন্য প্রাণীর কলিজা খেতে পারেন। এটি অনেক বেশি সাহায্য করে র*ক্তশূন্যতা দূর করতে।
  • দুধ,মাছ এবং ডিম খেতে পারেন। এছাড়াও রাতে এবং সকালে এক থেকে দুই চামচ করে মধু খেতে পারেন।
  • খেজুর খাওয়ার অভ্যাস করতে পারেন।
  • চিনা বাদাম খেতে পারেন র*ক্তশূন্যতা দূর করতে।
  • এমনকি বিভিন্ন ধরনের শাকসবজি খাওয়ার অবশ্যই চেষ্টা করবেন।

র*ক্তশূন্যতা দূর করার ওষুধের নাম কি

যদি শরীরের র*ক্তশূন্যতা দেখা দিয়ে থাকে তাহলে সব সময় চেষ্টা করবেন প্রাকৃতিক খাবারগুলো খেয়ে র*ক্ত শুদ্ধ দূর করা। তবে আপনার র*ক্তশূন্যতার পরিমাণ কতটুকু তা অবশ্যই কোন ওষুধ বা খাবার খাওয়ার পূর্বে পরীক্ষা করা। তবে এক্ষেত্রে যদি কোন রোগীর র*ক্তশূন্যতা দেখা দিয়ে থাকে তাহলে ডাক্তারগণ প্রাথমিকভাবে যে ঔষধ গুলো খাওয়ার পরামর্শ দিয়ে থাকেন। সেই ওষুধগুলোর নাম নিচের দেওয়া তালিকা থেকে দেখে নিন।

  1. সলবিয়ন
  2. নিউরো বি
  3. Revofer 500Mg Injection
  4. MB 12
  5. Bicozin tablet
  6. NEUBION TAB
  7. Neuvital
  8. Neubion
  9. Mecolagin
  10. বোস্ট

শরীরের শক্তি বৃদ্ধির উপায়

যদি শরীরের শক্তি বৃদ্ধি করতে চান বা র*ক্তস্বল্পতা দূর করতে চান। তাহলে বিভিন্ন ধরনের খাবার আপনি নিয়ম অনুযায়ী খেতে পারেন।এক্ষেত্রে আপনাকে শরীরের শক্তি বৃদ্ধি করতে দুধ,ডিম, কলা ইত্যাদি প্রোটিন যুক্ত খাবার খেতে হবে। এছাড়া শরীরের শক্তি বৃদ্ধি করতে আপনি মধু খেতে পারেন। এটি আপনার শরীরের দুর্বলতা অনেকাংশে কমিয়ে দিবে। অতএব সংক্ষিপ্ত আকারে আপনাদেরকে ধারণা দেওয়ার জন্য কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ নির্দেশনা দেওয়া হলো। যেমনঃ

প্রতিদিন শরীরচর্চা করুনঃ

শরীরের শক্তি বৃদ্ধি করতে শরীরচর্চা অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ। শরীর চর্চা করলে শরীর অনেক বেশি শক্ত হয়ে থাকে। এবং প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি পেতে থাকে। তাই নিয়মিত শরীর চর্চা করুন।

ম্যাগনেসিয়াম সমৃদ্ধ খাবার খানঃ

এই ম্যাগনিসিয়াম সমৃদ্ধ খাবার আমাদের শরীরকে অনেক শক্তিশালী এবং সবল রাখে। তাই আপনার শরীর যদি অনেকটা ক্লান্তি ভাব দেখা দিয়ে থাকে বা দুর্বল মনে হয়। তাহলে আপনার খাদ্য তালিকায় ম্যাগনেসিয়াম সমৃদ্ধ খাবার রাখতে পারেন। আশা করা যায় আপনি শরীরে অনেক বেশি শক্তি পাবেন।

কমপ্লেক্স কার্বোহাইড্রেট খানঃ

শরীরকে যদি দীর্ঘ সময় সতেজ রাখতে চান। তাহলে এক্ষেত্রে বেশি করে উচ্চ আঁশের খাবার খান, যা কমপ্লেক্স কার্বোহাইড্রেটে সমৃদ্ধ। এই কমপ্লেক্স কার্বোহাইড্রেট যুক্ত খাবার গুলো হচ্ছে গোটা শস্যের পাউরুটি, সিরিয়াল ও শাকসবজি। যা আপনার শরীরকে অনেক বেশি শক্তি যুগিয়ে দিবে।

পর্যাপ্ত পানি পান করুনঃ

দিনে অন্তত সাত থেকে আট গ্লাস পর্যন্ত পানি খাওয়ার চেষ্টা করুন। এতে শরীরের ক্লান্তি অনেকটা কমে যাবে। এছাড়াও র*ক্তশূন্যতা অনেকাংশে কমে যাবে আশা করা যায়। পানি খাওয়ার নিয়ম এমন হওয়া উচিত, যখন তৃষ্ণার্ত হওয়ার পূর্বেই পানি পান করা।

অস্বাস্থ্যকর ফ্যাট কমিয়ে ফেলুনঃ

উচ্চ পরিমাণ অস্বাস্থ্যকর ফ্যাট খাবার খাওয়ার পরে দিনের বেলায় শরীরে অনেকটা ক্লান্তি ভাব দেখা দিতে পারে বা কান্তি ভাব দেখা দিয়ে থাকে। তাই চেষ্টা করুন অস্বাস্থ্যকর ফ্যাট খাবারগুলো থেকে দূরে থাকার।

পর্যাপ্ত ঘুমানঃ

শরীরকে সুস্থ এবং শরীরের শক্তি বৃদ্ধি পেতে পর্যাপ্ত পরিমাণে আপনাকে অবশ্যই ঘুমাতে হবে। যদি পর্যাপ্ত পরিমাণে না ঘুমিয়ে থাকেন তাহলে আপনার অনেকটা ক্লান্তি ভাব দেখা দিতে পারে। এবং দুর্বল লাগতে পারে। তাই শরীরের শক্তি ফিরিয়ে আনতে পর্যাপ্ত পরিমাণ ঘুমিয়ে নিন।

গর্ভবতী মায়েদের র*ক্তশূন্যতা দূর করার উপায়

শরীরকে সুস্থ রাখতে হিমোগ্লোবিনের মাত্রা সঠিক রাখা অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ। যে বিশেষ করে গর্ভকালীন সময়ে যে সকল দিক ভালোভাবে বিবেচনা করে সতর্ক থাকা উচিত। তবে সম্ভবত এই গর্ভকালীন সময়ে র*ক্তশূন্যতা হওয়ার যথেষ্ট আশঙ্কা থাকে। তবে  স্বাভাবিকভাবেই একজন গর্ভবতী নারীর দেহে র*ক্তের পরিমাণ ১৫-২০ শতাংশ।

শরীরে লৌহের অভাবেই র*ক্তশূন্যতা দেখা দিয়ে থাকে। এই গর্ভাবস্থায় বিভিন্ন কারণে র*ক্তশূন্যতা দেখা দিতে পারে, যেমন খাদ্যাভাসের পরিবর্তন, ক্ষুধামান্দ্য, ভুল খাদ্যাভ্যাস ও পুষ্টিগুণ সম্পর্কে অপ্রতুল ধারণা। এছাড়াও যমজ শিশু গর্ভে ধারণ ইত্যাদি কারনে র*ক্তশূন্যতা দেখা দিতে পারে। এক্ষেত্রে র*ক্তশূন্যতা দূর করতে কি করা উচিত তা সঠিক ধারণা পোষন করা অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ।

  • গর্ভাবস্থায় র*ক্তস্বল্পতা দূর করতে নিয়মিত দুধ এবং ডিম খেতে হবে।
  • ভিটামিন সি জাতীয় সকল প্রকার খাবার নিয়ম অনুযায়ী খেতে হবে।
  • পেঁপে,  স্ট্রবেরি, গোলমরিচ, বাতাবিলেবু, কমলা, লেবু,ব্রোকোলি, আঙুর, টমেটো ইত্যাদিতে প্রচুর ভিটামিন সি থাকে।
  • লৌহ সমৃদ্ধ খাবার খেতে পারেন। যেমন কচুশাক, কাঁচা কলা, পেয়ারা, শিম, মটরডাল, বাঁধাকপি, কলিজা, গোশত, খোলসসহ মাছ, যেমন চিংড়ি মাছ
  • এছাড়াও আপনার চিকিৎসকের পরামর্শে প্রথম তিন মাস পর্যন্ত আয়রন ট্যাবলেট খেতে পারেন।

শিশুর র*ক্তশূন্যতা দূর করার উপায়

বিভিন্ন কারণে শিশুদের শরীরে র*ক্তের পরিমাণ অর্থাৎ হিমোগ্লোবিনের পরিমাণ কম থাকতে পারে। এ নিয়ে উদ্বিগ্ন হওয়ার কিছু নেই, সঠিক চিকিৎসা এবং কিছু উপায় অবলম্বন করলে আপনি খুব সহজেই একটি শিশুর র*ক্তশূন্যতা দূর করতে পারবেন। এক্ষেত্রে শিশুদের র*ক্তশূন্যতা দূর করার জন্য কিছু খাবার রয়েছে। যে খাবার গুলো আপনার শিশুকে খাওয়াতে পারেন। যেমন গরুর লাল মাংস, কলিজা, মুরগির কলিজা, ডিম, সামুদ্রিক মাছ, দই আরো ইত্যাদি।

এছাড়াও খেজুর কিসমিস ইত্যাদি খাওয়াতে পারেন। আপনার শিশুকে শুকনা ফল এবং বাদাম খাওয়াতে পারেন। এ সকল ফলগুলোতে প্রচুর পরিমাণে এন্টি অক্সিডেন্ট পাওয়া যায়। যা শিশুর শরীরে থাকা আমার ঘাটতি পূরণ করে দেয়। শিশুর র*ক্তশূন্যতা দূর করতে কলা খাওয়াতে পারেন। কেননা কলা শরীরে যথেষ্ট পরিমাণ পটাশিয়াম উৎপন্ন করে। যা একটি মানবদেহে র*ক্ত কণিকা এবং হিমোগ্লোবিনের পরিমাণ বাড়িয়ে দেয়।

এছাড়া আপনার সন্তানকে বেদানা, আপেল, এবং বিভিন্ন ফল, ভিটামিন সি এবং ফলিক এসিড জাতীয় খাবার গুলো খাওয়াতে পারেন। তবে জেনে রাখু*ন ভিটামিন সি র*ক্তশূন্যতা দূর করার সাহায্য করে। এক্ষেত্রে আপনি তাকে লেবু, কমলা, আমলকী, জলপাই, আঙুর, জাম্বুরা, পেয়ারা, আমড়া, বরই, স্ট্রবেরি ইত্যাদি খাওয়াতে পারেন। যা এসকল ফলে প্রচুর পরিমাণ ভিটামিন ‘সি’ থাকে।

শেষ কথা

আশা করতেছি ইতিমধ্যে আপনারা র*ক্তশূন্যতা দূর করার ঘরোয়া উপায় সম্পর্কে জানতে পেরেছেন। র*ক্তশূন্যতায় বেশি দিন ভুগতে থাকা ঠিক নয়। তাই যত তাড়াতাড়ি সম্ভব ডাক্তারের শরণাপন্ন হয়ে ঔষধ গ্রহণ করুন। আশা করতেছি ইতিমধ্যে র*ক্ত শূন্যতা দূর করার ওষুধ সহ বিভিন্ন উপায় সম্পর্কে জানতে পেরেছেন। যদি এই পোস্ট আপনার কাছে উপকৃত মনে হয়ে থাকে। তাহলে অবশ্যই আপনার আশেপাশের ব্যক্তিদের কে শেয়ার করে জানিয়ে দিবেন। ধন্যবাদ