Mm kit খাওয়ার নিয়ম ও দাম কত টাকা

অনলাইনে এসে আপনারা যদি এই Mm kit সম্পর্কে জানতে চান তাহলে আজকের এই পোস্ট থেকে Mm kit খাওয়ার নিয়ম সহ আরো বিস্তারিত তথ্য জানতে পারবেন। এম এম কিট হচ্ছে সাধারণত এমন নারী যাদের গর্ভধারণ ৭ সপ্তাহ থেকে ৬৩ দিন হয়েছে তাদের গর্বপাত করানো। এই এম এম কিট অথবা Dismis Mm Kit আর ইউ -৪৮৬ নামে পরিচিত।

এই কিট সিন্থেটিক স্টেরয়েড যা হরমোন দিয়ে হস্তক্ষেপ করে কাজ করে যা গর্ভাবস্থায় সহায়তা করে। তবে গর্ভপাত করার জন্য বিভিন্ন ওষুধ আপনি আপনার নিকটস্থ ফার্মেসি থেকে পেয়ে যাবেন।  তবে সম্পন্ন এই ওষুধ নির্ভর করছে আপনার গর্ভধারণের সময় অনুযায়ী। যদি আপনার গর্ভধারণের সময় ৭ সপ্তাহ থেকে ৫০ দিন পর্যন্ত হয়ে থাকে তাহলে আপনি Mm kit গ্রহণ করতে পারেন। অতএব জেনে নিন Mm kit খাওয়ার নিয়ম সম্পর্কে। অতঃপর Mm kit সম্পর্কে  বিস্তারিত জানতে  একটু নিচে প্রবেশ করুন।

Mm kit খাওয়ার নিয়ম

অনেক নারীর ক্ষেত্রে কখনো কখনো অনাকাঙ্ক্ষিত ভাবে বা অসাবধানতার কারণে গর্ভবতী হয়ে গেলে সেই গর্ভপাতের জন্য মাসিক নিয়মিত করণের জন্য এই এম এম কিট গ্রহণ করা হয়। তবে এ দোষগুলো ব্যবহারের বিভিন্ন পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া রয়েছে। তবে এই ডোজ বা কিট ব্যবহারের কিছু নিয়ম রয়েছে। 

এম এম কিট কি?

Mm kit সম্পর্কে জানতে গেলে আপনাদের জানতে পারি এটি এক ধরনের ওষুধ বা পিল।যা সাধারণত গর্ভপাত হওয়ার জন্য বা গর্ভনিরোধক ঔষধ হিসেবে ব্যবহার করা হয়। বিশেষ করে যাদের অনাকাঙ্ক্ষিত গর্ভধারণ হয়ে যায় তাদের গর্ভপাত করার জন্য এই ওষুধটি বেশি ব্যবহার করা হয়। তবে এই ওষুধ ব্যবহারের কিছু সময়সীমা রয়েছে যেমন গর্ভধারণের ৯ সপ্তাহের মধ্যে বা ৬৩ দিন এম এম কিট গ্রহণ করে গর্ভের বাচ্চা নষ্ট করে।

অতঃপর তাদের মাসিক নিয়মিত করার জন্যই এই পিল ব্যবহার করা হয়। যদি আপনার গর্ভধারণের সময় ৯ সপ্তাহ বাদ ৬৩ দিনের বা তার বেশি হয়ে যায় তাহলে এই ওষুধটি কোন মতেই গ্রহণ করা যাবে না। আর অবশ্যই এই ওষুধ গ্রহণ করা করবেন ডাক্তারের কাছ থেকে ভালোভাবে পরামর্শ নেবেন।

Mm kit খাওয়ার সঠিক নিয়ম

যদি এই Mm kit খাওয়ার নিয়ম সম্পর্কে জানতে চাই এবং খাওয়ার নিয়ম সম্পর্কে জানতে চাই তাহলে আমাদেরকে সবার আগে ট্যাবলেট এর সাথে পরিচিত হতে হবে। যেমন Mm kit কিটে মূলত দুই ধরনের ট্যাবলেট থাকে। একটি মিফেপ্রিষ্টোন ২০০ মি. গ্রা. উপাদান দিয়ে তৈরি একটি বড় ট্যাবলেট।আরেকটিতে মিসোপ্রোষ্টল ২০০ মাইক্রো গ্রাম উপাদান দিয়ে তৈরি ৪ টি ছোট ট্যাবলেট রয়েছে।

খাওয়ার নিয়ম বলতে গেলে, আপনাকে সম্পূর্ণ নিশ্চিত হতে হবে যে আপনি গর্ভবতী হয়েছেন কিনা।  গর্ভবতী না হলে কোন মতে এই ওষুধ গ্রহণ করা যাবে না। এতে আপনার জীবনের জন্য মারাত্মক ঝুঁকি হতে পারে। আমরা জানি এই এম এম কিটে প্রথম প্যাকেটে ৫ টি ট্যাবলেট। খাওয়ার নিয়ম হচ্ছেঃ

এমতাবস্থায় প্রথমে বড় ট্যাবলেটটি খেয়ে নিন, তার ঠিক ২৪ ঘন্টা পরে চারটি ট্যাবলেট জিহবার নিচে রেখে দিন। আরেকটা ট্যাবলেটগুলো এভাবে আধা ঘন্টা জিহবার নিচে রেখে দিতে হবে। অতঃপর ট্যাবলেট গুলো আধাঘন্টা পরেও মুখে থাকলে পরবর্তীতে পানি দিয়ে খেয়ে ফেলবেন।

Mm kit এর দাম কত

এই এম এম কিটে আপনি টোটাল ৫ টি ট্যাবলেট পেয়ে যাবেন। একটি প্যাকেটে একটি বড় এবং বাকি ৪ টি ছোট ট্যাবলেট। যেগুলো খাওয়ার নিয়ম ইতিমধ্যে আমরা উপরে উল্লেখ করেছি। আর এই Mm kit এর দাম হচ্ছে ৩০০ টাকা।

এম এম কিট কিভাবে ও কখন সেবন করবেন

ইতিমধ্যে আমরা এই Mm kit সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য আলোচনা করেছি। এবং উল্লেখ করেছে কিভাবে এবং কখন সেবন করবেন। অত্যন্ত বিশেষ সতর্কতার সাথে ওষুধটি সেবন করা দরকার। আপনাকে সবার আগে নিশ্চিত থাকতে হবে আপনি এই গর্ভবতী আছেন কিনা। না হলে আপনার মৃ*ত্যু ঝুঁকি থাকতে পারে। আর এই এম এম কিট সেবন করবেন আপনার গর্ভধারণের ৯ সপ্তাহের মধ্যে বা ৬৩ দিনের মধ্যে। আর কিভাবে সেবন করবেন ইতিমধ্যে তা উল্লেখ করা হয়েছে। উপরের প্যারাটি লক্ষ্য করুন। 

এম এম কিট এর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া

প্রত্যেক ওষুধের কিছু না কিছু পাশ্ব প্রতিক্রিয়া থাকে।  তাই কোন কিছু সেবনের বা গ্রহণ করা পূর্বে আপনার শরীরের অবস্থা ডাক্তারের কাছে সম্পূর্ণ বিস্তারিত শেয়ার করুন। এতে  ডাক্তার আপনার শরীরের অবস্থা বুঝে ওষুধ সেবনের সঠিক নিয়ম এবং সঠিক সময় বলে দিবেন। তবে এর মাঝে অনেকের শরীরে সঠিক সময়ে ওষুধ সেবন করার পরেও কিছু পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া লক্ষ্য করা যায়। 

এর মধ্যে ক্ষতিকর পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া গুলো হচ্ছেঃ শরীর থেকে র*ক্তপাত ,শরীরে ক্লান্তি আস ,বুকে ব্যথা করা,কাশি হওয়া,জ্বর , শরীরের ফোলা,প্রস্রাবের সমস্যা দেখা দেওয়া,শ্বাস নিতে অসুবিধা,ডায়রিয়া, উদ্বেগ,উল্টানো,বমি বমি ভাব, বাতিদেহ, পেট ব্যথা,দুর্বলতা, অস্থিরতা ইত্যাদি লক্ষণ দেখা যায়।

এর পূর্বেও এই ওষুধ সেবন করার পর যে সমস্যা গুলো একজন গর্ভবতী রোগীর মধ্যে দেখা যায় তা হচ্ছে নারীদের যোনি থেকে ভারি র*ক্তপাত। অথবা সংক্ষেপে নিচে আরো তথ্য উল্লেখ করা হলোঃ

  • অস্বাভাবিক ক্লান্তি এবং দুর্বলতা (Unusual Tiredness And Weakness)
  • পেটে ব্যথা এবং খিঁচুনি (Abdominal Pain And Cramps)
  • জরায়ুতে ব্যথা 
  • বমি ভাব বা বমি
  • মাথা ব্যাথা 
  • মাথা ঘোরা 
  • ডায়রিয়া 
  • হাত বা পায়ে ব্যাথা
  • ক্ষুধা না পাওয়া
  • অনিদ্রা 
  • শক্তির অভাব
  • শ্বাস নিতে অসুবিধা

এই ওষুধ কিভাবে কাজ করে

এমএম কিট(Mm kit) হচ্ছে নির্দিষ্ট গুলির সাথে প্রতিযোগিতামূলক ভাবে আবদ্ধ করে এবং র*ক্তপাত এবং সংকোচন প্ররোচিত করে।এবং আপনার জরায়ুর ভিতরের আস্তরণগুলিকে সংবেদনশীল করে প্রজেস্টেরনের প্রভাবকে অবরুদ্ধ করে। এছাড়াও এই হরমোনের অতিরিকানের সৃষ্টি প্রভাবককে রাস করে এই এম এম কিট।

শেষ কথা

আশা করছি আপনারা এই ওষুধ সম্পর্কে অনেক কিছু জানতে পেরেছেন। কিভাবে Mm kit ব্যবহার করতে হবে এবং Mm kit খাওয়ার নিয়ম তা সম্পূর্ণ ইতিমধ্যে বিস্তারিত আপনাদের উপরে উপস্থাপন করা হয়েছে। যদি এই পোস্ট করে উপকৃত হয়ে থাকেন তাহলে আপনার আশেপাশের ব্যক্তিদেরকে এই পোস্ট শেয়ার করে জানিয়ে দিন। ধন্যবাদ