অনলাইনে বিমানের টিকেট কাটার নিয়ম

পূর্বে জাহাজে করে মাসের পর মাস এবং বছরের পর বছর ধরে দেশের বিভিন্ন স্থানে এবং বিভিন্ন দেশে মানুষ যাত্রা করতো। তবে তাদের যাত্রা দীর্ঘদিন হওয়ায় যাত্রা ছিল অনিশ্চিত। তবে বর্তমানে যাতায়াত এতটাই সুনিশ্চিত এবং সহজ হয়ে গিয়েছে যে কয়েক ঘণ্টার মধ্যে একটি দেশ পর্যন্ত পারি দেওয়া সম্ভব হয়। তবে সময়ের পরিবর্তনের বর্তমানে এই বিমানের টিকেট ক্রয় করাটাও অনেকটা সহজ হয়ে গিয়েছে। যা পূর্বে অনেকটা কঠিন ছিল।

গন্তব্য স্থানে উপর নির্ভর করে বিমানের টিকিটের দাম নির্ধারিত হয়, আপনি যদি কোন দালাল বা এজেন্সি দ্বারা টিকেট ক্রয় করে থাকে তাহলে টিকিটের মূল্য একটু বেশি হতে পারে। আর আপনি যদি নিজে অনলাইনে গিয়ে বিমানের টিকেট কেটে নিয়ে থাকেন। তাহলে কিছুটা কম মূল্য টিকিট পেয়ে যেতে পারেন। এখানে আজকের আলোচনার মূল বিষয় হচ্ছে অনলাইনে বিমানের টিকেট কাটার নিয়ম আপনাদেরকে জানিয়ে দেওয়া।

অনলাইনে বিমানের টিকেট কাটার নিয়ম

বাংলাদেশ থেকে বিভিন্ন ধরনের বিমান প্রতিনিয়ত আন্তর্জাতিক রুটে চলাচল করে থাকে। এখানে বাংলাদেশ বিমান এয়ারলাইন্স, ইন্ডিগো এয়ারলাইন্স, কাতার এয়ারলাইন্স,ইমিরেটস এয়ারলাইন্স আরও ইত্যাদি এয়ারলাইন্স প্রতিনিয়ত চলাচল করে। তবে প্রত্যেকটি এয়ারলাইন্সের টিকেট ক্রয় করতে হলে তাদের এজেন্সিতে গিয়ে উপস্থিত থাকতে হবে। নতুবা তাদের অফিসিয়াল ওয়েবসাইট গুলোতে ভিজিট করে সেখান থেকে টিকিট বুকিং করে রাখতে হবে।

বিমানের টিকেট যদি অনলাইনের মাধ্যমে আপনি কাকে চান তাহলে অবশ্যই এই পোস্ট শেষ পর্যন্ত বিস্তারিত দেখু*ন। এখানে কয়েকটি ওয়েব সাইটের লিংক গুলি করা হয়েছে। এবং এবং সেই লিংক বা ওয়েবসাইট ব্যবহার করে কিভাবে আপনি অনলাইনের মাধ্যমে বিমানের টিকেট কেটে নিবেন তার বিস্তারিত নিয়ম উল্লেখ করা হয়েছে। আশা করা যায় যে কেউ ব্যক্তি এই পোস্ট দেখে অনলাইনে মাধ্যমে বিমানের টিকিট কেটে নিতে পারবেন।

বিমানের টিকিট বুকিং করার নিয়ম

বাংলাদেশের একমাত্র এয়ারলাইন্স হচ্ছে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স। আপনি চাইলে এই বিমানের টিকিট অনলাইনে তাদের নিজস্ব ওয়েবসাইট থেকে ক্রয় করে নিতে পারবেন। তবে এছাড়াও আপনি বিমানের টিকিট বুকিং করার জন্য বাংলাদেশ বিমান এয়ারলাইন্স ছাড়াও বিশ্বের যে কোন এয়ারলাইন নিচের দেওয়া এই লিঙ্কে প্রবেশ করে বুকিং করে নিতে পারবেন।

এর মধ্যেই বিমানের টিকিট বুকিং করতে হলে আপনাকে এই https://flightexpert.com/ লিংকে প্রবেশ করতে হবে। প্রবেশ করার পর নিচের দেওয়া ছবিটির মতো অপশন দেখতে পারবেন। অতএব সেখানে আপনি ওয়ান ওয়ে,রাউন্ড,মাল্টি সিটি ইত্যাদি ক্যাটাগরি দেখতে পারবেন। অর্থাৎ আপনার যাত্রা আপনি কিভাবে করতে চাচ্ছেন সেটি আপনি সেখানে নিশ্চিত করুন। One Way হচ্ছে আপনি শুধু যেতে পারবেন। আর Round Trip হচ্ছে যাওয়া এবং আসার টিকিট ক্রয় করা।

ছবিটিতে আরো একটি বার লক্ষ্য করুন সেখানে From লেখা রয়েছে। এটা দ্বারা বুঝায় আপনি বর্তমানে কোথায় উপস্থিত হয়েছেন। আর To দাঁড়া বুঝায় আপনি কোথায় যেতে চাচ্ছেন। সেখানে আপনার গন্তব্যস্থল এবং ভ্রমণের ঠিকানা নির্বাচন করতে হবে। Departure অতএব সেখানে আপনার তারিখ নির্বাচন করতে হবে। আপনি কোন দিন এর জন্য টিকিট বুকিং করতে চাচ্ছেন এবং যেদিন ভ্রমণ করতে চাচ্ছেন সেই তারিখ সেখানে উল্লেখ করুন।

আর যদি রিটার্ন আসতে চান, তাহলে তার পাশে আপনি রিটার্ন এর টিকিট ক্রয় করার জন্য শুধুমাত্র তারিখ লিখে দিন। তার পাশে Travelers & Booking Class লেখাটি হয়তো দেখতে পাচ্ছেন। অতএব সেখানে আপনার বিমানের ক্যাটাগরি নির্বাচন করুন। আপনার বিমানের টিকিটের মূল্য সম্পূর্ণ নির্ভর করছে আপনার দূরত্বের উপর এবং বিমানের ক্যাটাগরির উপর। অতএব নিচে দেওয়া লাল বক্সে সার্চ বাটনে ক্লিক করুন।

অতএব পূর্বের ধাপে সার্চ বাটনে ক্লিক করার পর উপরে দেওয়া এই ছবিটির মতো অনেকগুলো বিমান এয়ারলাইন্সের তালিকা দেখতে পারবেন। যেখান থেকে আপনি আপনার যাত্রার সময়, আপনার কোন বিমান এবং বিমানের কত টাকা টিকিট সবগুলো তথ্য বিস্তারিত দেখতে পারবেন। তারপর আপনার পছন্দমত বিমানের ক্যাটাগরি এবং বিমান নির্বাচন করে ডান পাশের লাল বক্সে Book Now বাটনে ক্লিক করুন। আশা করা যায় পরবর্তী ধাপগুলো আপনি খুব সহজে অনুসরণ করতে পারবেন।

অনলাইনে বিমানের টিকেট ক্যটেগরি নির্বাচন

বেশিরভাগ ক্ষেত্রে অনেকেই অল্প টাকায় টিকেট ক্রয় করার জন্য লোকাল টিকেট বা লোকাল বিমানগুলোর টিকিট ক্রয় করে থাকেন। তবে এক্ষেত্রে প্রত্যেকটি বিমানের তিনটি করে ক্যাটাগরি থাকে। সে ক্যাটাগরি গুলো হচ্ছেঃ

  • Economic
  • Premium economy
  • Business

আপনি যে ওয়েবসাইটে ঢুকে বিমানের টিকেট ক্রয় করতে যাবেন। তো প্রত্যেক বিমানের ওখানে আপনার কয়েকটি ক্যাটাগরি থেকে একটি ক্যাটাগরি অবশ্যই নির্বাচন করতে হবে। তবে আপনার পছন্দ অনুযায়ী ক্যাটাগরি নির্বাচন করার সুযোগ থাকছে। এবং ক্যাটাগরি অনুযায়ী বিমানের টিকিট মূল্য নির্ধারণ করা হয়ে থাকে। উল্লেখিত এখানে ইকোনমিক ক্লাসের বিমান গুলোর টিকেট মূল্য অনেকটা কম হয়ে থাকে।

এছাড়াও প্রিমিয়াম ইকনোমিক বিমানগুলোর মূল্য ইকোনমিক ক্লাসের থেকে একটু বেশি। এক্ষেত্রে প্রায় প্রিমিয়াম ক্লাসের বিমানগুলোর মূল্য তালিকা ইকোনোমি ক্লাসের বিমানে থেকে প্রায় ১৫ থেকে ২০ হাজার টাকা বেশি হয়ে থাকে। আর যদি বিজনেস ক্লাস বিমানের একটি টিকেট ক্রয় করেন সেক্ষেত্রে আপনাকে পর্যন্ত একটি টিকিটের মূল্য লাখ টাকা পর্যন্ত গুনতে হতে পারে। তুমি

বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সে অনলাইনে বিমানের টিকেট কাটার নিয়ম

যদি বাংলাদেশের সরকারি বিমান সংস্থা ব্যবহার করতে চান তাহলে বাংলাদেশের বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স ব্যবহার করতে পারেন।এক্ষেত্রে আপনি খুব স্বল্পমূল্যে যে কোন একটি টিকেট ক্রয় করে নিতে পারেন। তবে আপনার বিমানের টিকেট কিভাবে কাটবেন তার সম্পূর্ণ বিস্তারিত তথ্য থেকে বিস্তারিত জানতে পারবেন। তাই শুধুমাত্র বাংলাদেশ বিমান এয়ারলাইন্সের টিকিট কাটার নিয়ম নিচের দেওয়া ধাপগুলো থেকে দেখে নিন।

ধাপ ১: কাঙ্ক্ষিত গন্তব্যের ফ্লাইট অনুসন্ধান

সর্বপ্রথম আপনি এই https://www.biman-airlines.com/ লিংকে প্রবেশ করুন। তাই প্রবেশ করার পর নিচের দেওয়া ছবিটির মতো হয়তো একটি ডিসপ্লে আপনার সামনে প্রদর্শিত হয়েছে। অতএব টিকেট বুকিং করার জন্য কয়েকটি প্রক্রিয়া আপনাকে অবলম্বন করতে হবে। এর মধ্যে উল্লেখিত সর্বপ্রথম Book Flight অপশনটিতে ক্লিক করুন।

তারপর প্রয়োজনীয় তথ্যগুলো সেখানে উল্লেখ করুন। বিশেষ করে সেখানে আপনি আপনাকে ক্যাটাগরি নির্বাচন করতে পারবেন। এবং কোথা থেকে কোথায় যেতে যাচ্ছেন তার সম্পূর্ণ সেখানে উল্লেখ করা অপশন দেখতে পাবেন। তাই সেগুলো যথাযথভাবে পূরণ করুন। কবে যেতে চাচ্ছেন এবং কবে ফিরে আসতে চাচ্ছেন তার সম্পূর্ণ তারিখ সেখানে সঠিকভাবে লিখু*ন। তারপর সার্চ বাটনে ক্লিক করুন।

ধাপ ২: প্রস্থান ফ্লাইটের ধরন নির্বাচন

এখান থেকে আপনার ফ্লাইটের সিটগুলো সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য জানতে পারবেন। এবং আপনার বিমানের ক্যাটাগরি নির্বাচন করতে পারবেন। যদি ইকোনমিক ক্লাসের বিমানগুলো নির্বাচন করেন তাহলে অনেকটা কম মূল্যে একটি টিকেট পেয়ে যাবেন। অতএব টিকিট ক্রয় করার সময় ফ্লাইটের শর্তাবলী এবং টিকেটের শর্তাবলী গুলো বিস্তারিত দেখে নিন।

ধাপ ৩: ফ্লাইট ইকোনোমি সর্বপ্রথম আপনি এই লিংকে প্রবেশ করুনসিলেক্ট

অতএব এই ধাপে আপনার বিমানে নির্বাচন করার পর কয়েকটি ক্যাটাগরির অপশন দেখতে পারবেন। বিশেষ করে সুপার সেভার ইকোনোমি (Super Saver Economy),ইকোনোমি সেভার (Economy Saver) ,ইকোনোমি ফ্লেক্সি (Economy Flexi) আরো ইত্যাদি আরো ইত্যাদি। আর যদি সব থেকে কম খরচে ভ্রমন করতে চান তাহলে সেক্ষেত্রে সুপার সেভার ইকোনোমি  ‍ুওি ক্লাসের একটি বিমানের টিকেট ক্রয় করতে পারেন।

ধাপ ৪: রিটার্ন টিকেটের ধরন নির্বাচন

যেখানে যাচ্ছেন, এবং সেখান থেকে ফিরে আসার জন্য ওই একই সময়ে একে টিকিট ক্রয় করে নিতে পারেন। এক্ষেত্রে পরবর্তী ধাপে অর্থাৎ এই ধাপে রিটান টিকিটের ধরণ নির্বাচন করে নিতে পারেন। তাই আরো বিস্তারিত তথ্য জানতে একটু নিচে প্রবেশ করুন অর্থাৎ পরের ধাপগুলো অনুসরণ করুন।

ধাপ ৫: যাত্রীর বিস্তারিত তথ্য প্রদান

এই ধাপে একজন যাত্রীর ব্যক্তিগত পরিচয় দিতে হবে। বিশেষ করে তা জাতীয় পরিচয় পত্র অনুযায়ী সকল তথ্য সেখানে উল্লেখ করতে হবে। সেখানে আপনার নাম লিখতে হবে। এবং জাতীয় পরিচয় পত্র অনুযায়ী আপনার জন্ম তারিখ বসাতে হবে। অতএব সেখানে যাত্রীর কন্টাক্ট ইনফরমেশন সঠিকভাবে  প্রদান করতে হবে।

ধাপ ৭: যাত্রীর আসন নির্বাচন

তারপর সেখানে অ্যাভেইলেবল আপনার পছন্দ অনুযায়ী সিট নির্ধারণ করুন। সেখানে আপনার সিট নির্ধারণ করার অপশন দেখতে পারবেন। যে সিটে বসতে চান সেই সিটের উপর ক্লিক করে সিট নির্বাচন করুন। সিট নির্বাচন সম্পন্ন হয়ে গেলে নিচে লেখা কন্টিনিউ টু এক্সট্রাস’ অপশনে ক্লিক করুন।

ধাপ ৮: টিকেটের মূল্য পরিশোধ

এভাবে আপনি আপনার টিকেটের মূল্য সম্পর্কে জানতে পারবেন। মূল্য পরিশোধ চাইলে আপনি বিভিন্ন ব্যাংকিং সিস্টেম ব্যবহার করে মূল্য পরিশোধ করতে পারবেন। এক্ষেত্রে আপনি বিকাশ এবং নগদ অথবা বিভিন্ন ব্যাংক অ্যাকাউন্ট ব্যবহার করতে পারেন। যেখানে আপনাকে কয়েকটি অপশন দেখাবে। তাই আপনি যদি নগদ ব্যবহার করে মূল্য পরিশোধ করতে চান তাহলে নগদ অপশনে ক্লিক করুন। অতএব পরবর্তী ধাপ অনুসরণ করুন।

ধাপ ৯: বিমানের টিকেট সংগ্রহ

পূর্বের ধাপগুলো যদি সঠিকভাবে সম্পন্ন করে নিতে পারেন। তাহলে এভাবে প্যাসেঞ্জার ডিটেলস অপশনে দেওয়া যাত্রী ইমেইল ঠিকানায় বিমানের টিকিট পাঠিয়ে দেওয়া হয়। তো সেখান থেকে আপনি আপনার বিমানের টিকিট সংগ্রহ করতে পারবেন। এক্ষেত্রে পরবর্তীতে যে কোন নিকটস্থ সাইবার ক্যাফে বা দোকান থেকে আপনি বিমানের টিকিট প্রিন্ট করে নিতে পারবেন।

অ্যাপস দিয়ে বিমানের টিকিট কাটার নিয়ম

আপনি চাইলে আপনার মোবাইলে স্মার্টফোনে বিমানের টিকেট কাটার কয়েকটি অ্যাপস ইনস্টল করতে পারেন। সে ক্ষেত্রে ওয়েব সাইটে ভিজিট কার্ড থেকে এভাবে টিকিট করে অনেকটা সহজ হতে পারে আপনার জন্য। সেখানে সফল তথ্য বিস্তারিতভাবে উল্লেখ করা থাকে। টিকিটের মূল্য, টিকেটের ডিসকাউন্ট ইত্যাদি ইত্যাদি তথ্য সেখানে উল্লেখিত থাকে। তবে আপনি যে বিমানের টিকেট ক্রয় করতে চাচ্ছেন সেই বিমানের টিকেটের তাদের নিজস্ব অফিসিয়াল ওয়েবসাইট বা অ্যাপ থাকে। যেখানে আপনি প্রবেশ করে খুব সহজে বিমানের টিকেট কেটে নিতে পারবেন।

বিমানের টিকেটের দাম কত?

আপনি বাংলাদেশ থেকে অথবা অন্য দেশ থেকে কোন দেশে যেতে চাচ্ছেন সম্পূর্ণ তার উপর ভিত্তি করে বিমানের টিকেট মূল্য নির্ধারণ করা হয়। তবে বিমানের টিকেট মূল্য এছাড়া নির্ভর করে বিমানের ক্যাটাগরির উপরে। ধরুন আপনি যদি বাংলাদেশ থেকে সৌদি আরবে যেতে চান তাহলে বর্তমানে সর্বনিম্ন বিমানের টিকেটের দাম হবে ৪৮ হাজার থেকে ৬০ হাজার টাকা।

এবং বিমানের ক্যাটাগরির উপর নির্ভর করে সৌদি আরবের প্রতি বিমানের টিকিটের মূল্য হবে প্রায় ৭০ থেকে ৮০ হাজার টাকা। এছাড়া বিমানের টিকেট মূল্য বাংলাদেশ থেকে ভারতের ৮ থেকে ১০ হাজার টাকা। অর্থাৎ বিমানের টিকিটের দাম সম্পূর্ণ নির্ভর করছে দূরত্ব এবং বিমানের ক্যাটাগরির উপরে। এবং মাঝে মাঝে বিভিন্ন অকেসন বা ভ্রমণের ক্ষেত্রে সব টিকেট মূল্য বৃদ্ধি পেয়ে থাকে।

কম মূল্যে বিমানের টিকেট কেনার উপায়

যদি দেশের বাইরে যেতে চান তাহলে অবশ্যই আপনাকে উড়োজাহাজ বা বিমানে ভ্রমণ ছাড়া অন্য কোন উপায় নেই। তবে প্রতিনিয়ত যদি ব্যবসার উদ্দেশ্যে বাংলাদেশ থেকে বিভিন্ন দেশে ভ্রমণ করে থাকেন। সেক্ষেত্রে আপনার অবশ্যই কম মূল্যের বিমানের টিকিট কেনা উচিত। তবে সাধারন ক্ষেত্রে যাত্রী চাহিদা এবং সার্বিক পরিস্থিতির উপর বিবেচনা করে বিমানের টিকিটের মূল্য উঠানামা করে থাকে। অতএব যাদের প্রতিনিয়ত ভ্রমণের ক্ষেত্রে টিকিটের মূল্য অনেক বেশি হয়ে যাচ্ছে। তারা এখান থেকে কম মূল্যে বিমানের টিকিট কেনার উপায় সম্পর্কে জেনে নিন।

  • যত আগে বুকিং তত কম দামে টিকেটঃ আপনার ভ্রমণের পূর্বে যত আগে টিকিট বুকিং করে নিতে পারেন তত কোন টাকায় আপনি টিকিট পেয়ে যাবেন। আর ভ্রমণের যত আগে টিকিট ক্রয় করবেন টিকিটের মূল্য তত বৃদ্ধি পাবে।
  • ট্রাভেল এজেন্ট এর সাহায্য পরিহার করুনঃ টিকিট ক্রয় করার সময় অবশ্যই নিজের মোবাইল অথবা ল্যাপটপ কম্পিউটার ব্যবহার করে অনলাইনে বিভিন্ন ওয়েবসাইট ব্রাউজ করে নিজে নিজেই বিমানের টিকেট বুকিং করা যেতে পারবেন। এক্ষেত্রে কোন একজনকে বা কোন দালালের সাহায্য নিবেন না।
  • অনলাইন অ্যাপ বা বুকিং সাইট ব্যবহার করাঃ বিমানের টিকিট ক্রয় করতে অবশ্যই online অ্যাপ অথবা বুকিং সাইট ব্যবহার করবেন। কোন দালালের সাহায্য নিবেন না। এক্ষেত্রে অনেক সময় অ্যাপের মাধ্যমে বিমানের টিকেট করে করলে কিছু টাকা কম মূল্যে পাওয়া যায়।
  • ছুটির দিনের ফ্লাইট বুকিং এড়িয়ে চলাঃ ছুটির দিনগুলোতে ভ্রমণের অনেক ভিড় করা যায়। যে জন্য টিকিটের মূল্য একটু বৃদ্ধি হয়। এছাড়া চেষ্টা করবেন শুক্রবার এবং শনিবার এই দিনগুলো এড়িয়ে চলা। কেননা এই বন্ধের দিনগুলোতে অনেক বেশি পরিমান টিকিট বিক্রি হয়। যার জন্য টিকিটের মূল্য একটু বেশি হয়।
  • সরাসরি বিমান কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগঃ টিকেট ক্রয় করতে চাইলে সরাসরি বিমান কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করতে পারেন। এতে কিছুটা পরিমাণ টিকিটের মূল্য কম পেতে পারেন।
  • রাউন্ড ট্রিপ টিকেটঃ যেখানে ভ্রমণ করছেন অবশ্যই রাউন্ড ট্রিপ এর টিকেট ক্রয় করে নিন। এতে কিছুটা কম মূল্যে টিকিট পেয়ে যেতে পারেন।

শেষ কথা

বর্তমান সময়ে অনলাইনের মাধ্যমে টিকেট কাটা অনেক বেশি সহজ। আপনি চাইলে এজেন্সিতে গিয়ে বিমানের টিকেট কেটে নিতে পারেন। অথবা অনলাইনের মাধ্যমে টিকেট কেটে নিতে পারেন। এত ব্যথা করতেছে আমাদের এই পোস্ট থেকে আপনারা ইতিমধ্যে অনলাইনে বিমানে টিকিট কাটার নিয়ম সম্পর্কে জানতে চেয়েছেন।

সম্পূর্ণ সহজভাবে আপনাদেরকে আজকের আলোচনা বিমানের টিকিট কাটার নিয়মটি উপস্থাপন করার চেষ্টা হয়েছে। আশা করতেছি এই পোস্ট থেকে অনেকটা প্রকৃত হয়েছেন। উপকৃত মনে হলে অবশ্যই আপনার আশেপাশের ব্যক্তিদেরকে এই পোস্ট শেয়ার করে জানিয়ে দিন। ধন্যবাদ