মানসিক রোগের ঔষধের নাম কি ও দাম কত

বিভিন্ন ধরনের মানসিক রোগ হতে পারে। তবে এজন্য আমরা অনেকেই এসব মানসিক রোগীদেরকে পাগল বলে আখ্যায়িত করে থাকি। যেমন অ্যাংজাইটি, ডিপ্রেশন, মুড সুইং আরো অনেক ধরনের মানসিক রোগ হতে পারে। তবে অতিরিক্ত চিন্তা থেকেই এই মানসিক রোগের লক্ষণ দেখা দিতে পারে। আবার বংশগতভাবেও এই মানসিক রোগ অনেকের হতে পারে। অর্থাৎ বিভিন্ন ক্ষেত্রে মানসিক রোগ হতে পারে। তবে থেকে বেঁচে থাকার জন্য সঠিক চিকিৎসা এবং সঠিক ওষুধ গ্রহণ করতে হয়। তবে যারা এ বিষয় নিয়ে জানতে চাচ্ছেন তাদের জন্য আজকে মানসিক রোগের ঔষধের নাম বিস্তারিত উল্লেখ করেছি।

আর এছাড়াও এই পোস্ট থেকে আপনারা জানতে পারবেন মানসিক রোগের ঔষধ কোনটি সবথেকে ভালো কাজ করে। এবং ঘরোয়া উপায়ে এই মানসিক রোগ থেকে মুক্তি পাওয়ার উপায়। এছাড়াও কেন এই মানসিক রোগ হয় সে বিষয়টিও এখানে আপনাদের জন্য উল্লেখ করা হয়েছে। আর এই মানসিক রোগ অনেক জটিল একটি সমস্যা। অতি দ্রুত এ সমস্যা নিরাময় করা উচিত। তাই মানসিক রোগের ঔষধের নাম বিস্তারিত আমাদের এই পোস্ট থেকে জেনে নিন। অতএব বিস্তারিত তথ্য জানতে একটু নিচে প্রবেশ করুন।

মানসিক রোগের ঔষধের নাম

বিভিন্ন ধরনের ঘটনা, স্ট্রেস বা ট্রমা বংশগত সমস্যা, অতিরিক্ত চিন্তা করা, কোন বিষয় নিয়ে উদ্বিগ্ন থাকা  এমনকি কোন মানুষের দ্বারা কথার দ্বারা চরম আঘাতপ্রাপ্ত হওয়া ইত্যাদি কারণে মানসিক রোগ হতে পারে। তাই ওষুধগুলো গ্রহণ করার পূর্বে ডাক্তারের কাছে সঠিক তথ্য প্রদান করুন। এতে আপনার মানসিক রোগ থেকে মুক্তি পেতে অনেক বেশি সাহায্য করবে। তবে এ মানসিক রোগ অনেক ক্ষেত্রে শারীরিক অবস্থার অবনতির কারণেও হয়ে থাকে।

বুক অতিরিক্ত ধরফর করা,শরীরে বিভিন্ন স্থানে ব্যথা বা পেশি ব্যথা হওয়া,মাঝে মাঝে অতিরিক্ত কাপুনি দিয়ে ওঠা। শরীর থেকে অতিরিক্ত ঘাম বের হওয়া,নিঃশ্বাস নিতে কষ্ট হওয়া। বিভিন্ন ধরনের ট্রমা বা মানসিক চাপ অতিরিক্ত অনুভব করা। আরো সকল সমস্যা থাকতে পারে, তবে যারা এই মানসিক রোগ থেকে মুক্তি পেতে চাচ্ছেন।

তারা অবশ্যই একজন অভিজ্ঞ ডাক্তারের কাছ থেকে পরামর্শ নিবেন। অথবা আপনার আশেপাশে যারা মানসিক রোগে ভুগছেন তাদেরকে নিয়ে ভালো একজন ডাক্তারের কাছে যোগাযোগ করুন। অতঃপর চিকিৎসা গ্রহণ করুন। তবে কোন ওষুধ গুলো খেলে মানসিক রোগ থেকে পাওয়া যায় তা আমরা এখানে উল্লেখ করেছি। অতএব মানসিক রোগের ঔষধের নাম বিস্তারিত জানতে একটু নিচে প্রবেশ করুন।

মানসিক রোগের নাম

বর্তমানে মানসিক রোগের বিভিন্ন ধরনের নাম রয়েছে। এগুলোর মধ্যে কিছু কিছু মানসিক রোগ খুবই মারাত্মক আবার কিছু কিছু রোগ খুব সাধারণ। অনেকেই ইন্টারনেটে মানসিক রোগের নাম কি তা জানতে চায়। এখন আমি আপনাদের সাথে ভয়ঙ্কর তিনটি মানসিক রোগের নাম ও এর লক্ষণ শেয়ার করব। আশা করি নিচের লেখাগুলো পড়লে আপনি মানসিক রোগ সম্পর্কে বিস্তারিত ধারণা অর্জন করতে পারবেন।

কোটার্ড সিনড্রোম

মানুষ ম*রণশীল, প্রত্যেক প্রাণীকেই একদিন মৃ*ত্যুর স্বাদ গ্রহণ করতে হবে। কোটার্ড সিনড্রোম নামে এক ধরনের মারাত্মক মানসিক রোগ রয়েছে। এই রোগে আক্রান্ত রোগীরা মৃ*ত্যুর পর পারিপার্শ্বিক অবস্থা জানার এক ধরনের ইচ্ছা অনেকের মনেই কাজ করে। মৃ*ত্যুর পর কে কে কাঁদবে, কে তাকে নিয়ে কী বলবে, অবচেতন মনে অনেকে এসব ভাবনাও ভেবে থাকে। অবাক হলেও এসব ঘটনা কিন্তু সত্যি হতে পারে। তবে সে জন্য তাকে কোটার্ড সিনড্রোমে আক্রান্ত হতে হবে।

মিথোম্যানিয়া

মিথ্যে বলার মত জঘন্যতম কাজ আর দ্বিতীয়টি নেই। মিথোম্যানিয়া হচ্ছে এরকম একটি মানসিক রোগ যে রোগে আক্রান্ত রোগীরা মিথ্যে বলতে বেশ পছন্দ করে থাকে। তারা তাদের আশেপাশের লোকজনদের সাথে প্রতিনিয়ত বিভিন্ন বিষয়ে বানিয়ে বানিয়ে মিথ্যা বলতে থাকে। এই মিথ্যাটাকে সত্য বানানোর জন্য সে যেকোনো ধরনের কাজ করতে পারে।

অটোফ্যাজিয়া

অভ্যাসের বশে, অতিরিক্ত টেনশন, সিদ্ধান্তহীনতা যেকোনো কারণেই অনেকে নখ খুঁটে থাকেন। নখ খোঁটা পর্যন্ত ঠিকঠাক; কিন্তু হুট করে একদিন নখ খুঁটতে খুঁটতে কেউ যদি কোনো কারণে রাগ সংবরণ করতে না পেরে নিজের আঙুলেই কামড় বসান! আঙুলে কামড় বসিয়ে সেখান থেকে চামড়া তুলে নেওয়া পর্যন্ত তিনি ক্ষান্ত হলেন না।

মানসিক রোগে কোন ওষুধ খেতে হয়

আপনি অথবা আপনার আশেপাশে কোন ব্যক্তি যদি মানসিক রোগে ভুগতে থাকেন তাহলে তাদেরকে নিম্নে উল্লেখিত ওষুধ গুলো গ্রহণ করতে নির্দেশ দেওয়া যেতে পারে। তবে সর্বোপরি এই ওষুধগুলো অবশ্যই একজন অভিজ্ঞ ডাক্তারের সাথে পরামর্শ গ্রহণ করে সেবন করতে হবে। তবে এ মানসিক রোগ গুলো বিভিন্ন ধরনের হয়ে থাকে। তাই চিকিৎসার ধরন গুলোও ভিন্নরকম হতে পারে।

যে রোগগুলো সাধারণ ক্ষেত্রে মানসিক রোগের কারণ হয়ে দাঁড়ায় সে রোগ বা কারণ গুলো হচ্ছে সিজোফ্রেনিয়া,সাইকোসিস ডিজঅর্ডার। এবং সাবস্টেন্স,অ্যাবিউজ,ওসিডি, হেলথ অ্যাংজাইটি,পোস্ট ট্রমাটিক ট্রেস ডিজঅর্ডার,প্যানিক অ্যাটাক,ফোবিয়া,কনভারশন ডিজঅর্ডার,পার্সোনালিটি ডিজঅর্ডার- মানুষ প্রতিনিয়ত এই মানসিক রোগ গুলোতে ভুগছে। তো চলুন জেনে নেওয়া যাক এমন সব মানসিক রোগের কোন ওষুধ খেতে হয়। অর্থাৎ নিচে কয়েকটি ট্যাবলেট বা বিভিন্ন ওষুধের নাম উল্লেখ করা হলো।

  • Oxapro 10
  • Deprex 5
  • Deprex 10
  • Nexcital 10
  • Oxat 20
  • Qupex 200
  • Residon 2
  • Residon 4

মানসিক রোগের ওষুধগুলোর দাম কত

এ সকল ওষুধের দামগুলো নির্দিষ্ট করে বলা সম্ভব নয়। তবে যদি কোন ট্যাবলেট থেকে থাকে বা কোন  ডাক্তার আপনাকে ট্যাবলেট প্রদান করে থাকেন তাহলে সে সকল ট্যাবলেটের মূল্য নির্ধারিত হবে। যেমন Deprex 5 এ ট্যাবলেটের দাম ২ টাকা ৫০ পয়সা।

আর Deprex 10 এর ট্যাবলেট টির দাম ৪ টাকা ৫০ পয়সা। এছাড় Residon এ ট্যাবলেট প্রতিফিস দুই টাকার এবং ৪ টাকা এছাড়াও ৯ টাকায় পাওয়া যায়। তবে মানসিক রোগের চিকিৎসা গুলো করতে লাখ টাকা লাগতে পারে। সম্পূর্ণ নির্ভর করছে এর চিকিৎসার ধরনের উপর।

মানসিক রোগের কিউপেক্স ২০০ এম জি ট্যাবলেট

কিছু মানসিক রোগের জন্য কিউপেক্স ২০০ এম জি ট্যাবলেট ব্যবহার করা হয়। বিভিন্ন বিষয় নিয়ে বিষণ্ণতায় ভোগা এবং ড্রাগ মস্তিষ্কের নিউরোট্রান্সমিটারগুলির ভারসাম্য পুনরুদ্ধার করতে ট্যাবলেট ব্যবহার করা হয়।

সকল রোগের চিকিৎসা বর্তমানে রয়েছে। তবে সঠিক ডাক্তার এবং সঠিক ঔষধ গ্রহণ করলে এ সকল চিকিৎসা থেকে মুক্তি পাওয়া সম্ভব। তবে মানসিক রোগ থেকে মুক্তি পেতে কিউপেক্স ২০০ এম জি ট্যাবলেট কার্যকরী।

এ ট্যাবলেটটি আপনার মেজাজকে এবং ক্ষুধা, ঘনত্ব, ঘুম এর পাশাপাশি আপনার শক্তি মাত্রা আরো শক্তিশালী করে। এছাড়াও এই গুরুত্বপূর্ণ ট্যাবলেটটি বাইপোলার ডিসঅর্ডার, সিজোফ্রেনিয়া বা বিষণ্নতা সম্পর্কিত লক্ষণগুলি চিকিৎসা করার জন্য ব্যবহৃত হয়। এছাড়াও এই ওষুধ কঠোর মেজাজ কে প্রতিরোধ করে। 

মানসিক রোগের লক্ষণ সমূহ

যে কারণগুলো আপনার শরীরে বা আপনার মধ্যে লক্ষ্য নিয়ে হলে মানসিক রোগের কারণ হতে পারে তা নিচে আমরা উল্লেখ করতে যাচ্ছি। বিভিন্ন কারণ একজন মানুষের শরীরের লক্ষণীয় হয়। যে লক্ষণগুলো প্রকাশ পেলে মানসিক রোগ বলে আখ্যায়িত করা হয়। তো চলুন নিচের সেই মানসিক রোগএর লক্ষণ সমূহ দেখে নেওয়া যাক*।

  • শারীরিক উত্তেজনা বা বেশি ব্যথা হওয়া
  • আর দ্রুত স্পন্দন হওয়া
  • খুদা এবং ওজনের পরিবর্তন
  • শ্বাসকষ্ট বা শ্বাস নিতে কষ্ট হওয়া
  • শরীরের কাঁপুনি
  • দুঃখ-বিলাস ও কোন কারণে বেশি  বিষন্নতায় ভোগা
  • দীর্ঘদিন যাবত অনিদ্রা
  • হ্যালুসিনেশন
  • শরীরে ক্লান্তি বা  শক্তিহ্রাস

আরো ইত্যাদি কারণ থাকতে পারে যে কারণগুলো লক্ষ্য নিয়ে হলে মানসিক রোগ ধরা যায়। 

মানসিক রোগ থেকে মুক্তির উপায়

তবে মানসিক রোগ থেকে খুব সহজে মুক্তি পাওয়া যায়। সঠিক চিকিৎসা এবং সঠিক পদ্ধতি অবলম্বন করলে এক নিমিষেই মানসিক রোগ দূর করা যায়। তো চলুন মানসিক রোগের ঔষধের নাম এর পাশাপাশি মানসিক রোগ থেকে মুক্তির উপায় গুলো নিচে দেওয়া তালিকা থেকে জেনে নেওয়া যাক।

  • আপনার যে সমস্যা হোক তা পরিস্থিতি দেখে পলায়নপর হবেন না কিংবা এড়িয়ে যাবেন না।
  • অতীত কিংবা ভবিষ্যৎ নয়, বর্তমান নিয়ে ভাবুন। পূর্বের চিন্তা গুলো মানসিক রোগের অনেক কারণ হয়ে দাঁড়ায়। তাই এ সকল অপ্রতিকর চিন্তা গুলো বাদ দিতে হবে।
  • স্বজনদের সঙ্গে অকৃত্রিম বন্ধন তৈরি করুন।
  • সৃজনশীল হোন।
  • পর্যাপ্ত ঘুম নিশ্চিত করুন।
  • কোনো ধরনের আবেগকে নিজের আত্মপরিচয়ের অংশ মনে করবেন না।
  • নিজের অক্ষমতা স্বীকার করুন।

মানসিক রোগের জন্য কোন ঔষধ ভালো

ইতিমধ্যে মানসিক রোগের নিরাময়ের জন্য বিভিন্ন ওষুধের নাম উল্লেখ করেছি। এবং বিভিন্ন উপায় সম্পর্কে বিস্তারিত জানিয়েছি। তবে এ মানসিক রোগের জন্য কোন ওষুধ সব থেকে ভালো হবে সে বিষয়টি এখানে উল্লেখ করছি। অতএব নিম্নে সেই ওষুধের নাম হলো নাম গুলো হল।

  • Citalopram
  • fluoxetine (Prozac)
  • escitalopram oxalate (Lexapro)
  • fluvoxamine (Luvox)
  • sertraline (Zetraline)
  • paroxetine HCL (Paxil)

মানসিক রোগ কি ভাল হয়?

সকল ব্যাধি মুক্তি পাওয়া সম্ভব আর শুধুমাত্র ভালো চিকিৎসা এবং সঠিক পদ্ধতি গ্রহণ করতে হবে। এ প্রশ্নের উত্তর হচ্ছে হ্যাঁ। এই মানসিক রোগ থেকে ভালো হওয়া সম্ভব। একজন ভালো মানের চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী চিকিৎসা নিলে মানসিক রোগ হতে নিরাময় পাওয়া সম্ভব। তবে সকল ধরনের মানসিক রোগ চিরতরে নিরাময় করা সম্ভব হয় না। নিয়ম মেনে ওষুধ সেবন এবং মহান আল্লাহতালা চাইলে যে কোন মানসিক রোগীকে সুস্থ করে দিতে পারেন।

মানসিক রোগের হোমিওপ্যাথি ওষুধের নাম

বিভিন্ন ধরনের সামাজিক বিচ্ছিন্নতা,অস্বাভাবিক মাথার গঠন,নেশা বা ড্রাগ জাতীয় বিভিন্ন ধরনের পদার্থ সেবন ইত্যাদির ফলে মানসিক রোগ হতে পারে। তবে বিভিন্ন পদ্ধতি অবলম্বন করে অনেকে এসব রোগ থেকে বেঁচে থাকতে চান রেহাই পেতে চান। তবে হোমিওপ্যাথি ওষুধ অনেক বেশি কার্যকর এ সকল রোগ থেকে মুক্তি পেতে। নিচে কয়েকটি মানসিক রোগের হোমিওপ্যাথি ওষুধের নাম উল্লেখ করা হলো।

  • হায়োসাইয়েমাস(Hyoscyamus Nigar)
  • এনাকারডিয়াম(Anacardium oriental)
  • নেট্রাম মিউর(Natrum Muriaticum)
  • Bacillinum
  • Nux Vomica,Chanomilla
  • Causticum

এ সকল ওষুধ অবশ্যই আপনার চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী গ্রহণ করবেন তাছাড়া কোনমতে গ্রহণ করতে যাবেন না। এতে বিপরীত হতে পারে। 

মানসিক রোগের ওষুধ কত দিন খেতে হয়

রোগের তীব্রতার উপর নির্ভর করে মানসিক রোগীকে ওষুধ সেবন করতে হয়। অনেকেই জানতে চায় মানসিক রোগের ঔষধ কত দিন খেতে হয়। এটি আসলে নির্দিষ্ট করে বলা কখনোই সম্ভব নয়। তবে কিছু কিছু মানসিক রোগের ক্ষেত্রে অল্প দিনেই রোগ ভালো হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে। আবার কিছু কিছু ক্ষেত্রে মানসিক রোগের ওষুধ সেবন করতে হয়। এমনও হতে পারে রোগের মাত্রার তীব্রতার উপর নির্ভর করে আজীবন এই ওষুধ চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী সেবন করতে হবে।

শেষ কথা

মানসিক রোগ অনেক মারাত্মক একটি রোগ। মানসিক রোগ থেকে সাধারণ ব্যক্তিরা বিষণ্ণতায় ভুগতে থাকেন। যা পরবর্তীতে একলা থাকার প্রবণতায় শরীরে বিভিন্ন রকম রোগের সৃষ্টি হয়। তবে আজকের আলোচনায় আমরা মানসিক রোগের ঔষধের নাম ইতিমধ্যে উপরে উল্লেখ করেছি। হয়তো আপনারা সেই ওষুধের নাম জানতে পেরেছেন। অতঃপর ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী সঠিক চিকিৎসা গ্রহণ করুন। আপনার আশেপাশে এমন ব্যক্তিদেরকে এই পোস্ট শেয়ার করে জানিয়ে দিন। ধন্যবাদ