রোমানিয়া ভিসার দাম কত 2023

দক্ষিণ পূর্ব ইউরোপের একটি দেশের রোমানিয়া। এই রোমানিয়া হচ্ছে ইউরোপের দ্বাদশ তম বৃহত্তম দেশ। এ দেশটির আয়তন ২৩৮,৩৯৭ বর্গকিলোমিটার (৯২,০৪৬ বর্গ মাইল)। আর এদেশের গুরুত্বপূর্ণ শহরের নাম অর্থাৎ রাজধানী হচ্ছে বুখারেস্ট। বর্তমানে প্রায় রোমানিয়ার দেশে জনসংখ্যা ১৯ মিলিয়ন। তবে বর্তমানে এর থেকেও অনেক বৃদ্ধি পেয়েছে জনসংখ্যা।

বাংলাদেশ থেকে বহু মানুষ রোমানিয়া যাওয়ার জন্য ভিসা তৈরি করতে চাচ্ছেন। এবং ইতিমধ্যে অনেকে ভিসা তৈরির প্রক্রিয়া সফল করে নিয়েছেন। তবে আপনি বাংলাদেশ থেকে রোমানিয়া যাওয়ার জন্য বিভিন্ন ক্যাটাগরির ভিসা তৈরি করে নিতে পারবেন। এজন্য আপনাকে বিভিন্ন পদক্ষেপ এবং প্রক্রিয়া অবলম্বন করতে হবে। তো আজকের পোস্ট থেকে জেনে নিন রোমানিয়া ভিসার দাম কত। তাই সম্পূর্ণ পোস্ট বিস্তারিত দেখু*ন।

রোমানিয়া ভিসার দাম কত

বাংলাদেশ থেকে বহু মানুষ ইউরোপীয় দেশগুলোতে যেতে অনেক ইচ্ছা পোষণ করে থাকে। তবে এ সকল ইউরোপীয় দেশগুলোর ভিসা পেতে একটু কষ্ট হয়ে যায়। অর্থাৎ খুব সহজে ভিসা পাওয়া যায় না বলেই চলে। তবে ভিসা পেয়ে গেলেও অনেক টাকা খরচ হয়ে যায়। তবে প্রতিবছর রোমানিয়ার বিভিন্ন কাজের জন্য ভিসার অফার করে থাকেন।

যে অফার কে কাজে লাগিয়ে একজন বাংলাদেশী বিভিন্ন কাজের ভিসা গ্রহণ করে রোমানিয়া পৌঁছাতে পারেন। তবে সাধারন ক্ষেত্রে কোম্পানির, টুরিস্ট ভিসা,স্টুডেন্ট ভিসা এবং বিভিন্ন কোম্পানি কাজের এ  ভিসায় আপনি রোমানিয়া যেতে পারবেন। তবে আপনারা যদি চান তাহলে সিজনাল বা নন সিজনাল উভয় ভিসায় রোমানিয়া আসতে পারবেন। তবে এক্ষেত্রে ভিসার দামের অনেকটা পার্থক্য হবে।

রোমানিয়া ভিসার আবেদন

বর্তমানে রেমানিয়ার ভিসা চালু আছে। তবে আপনাকে সেই ভিসা খুজে বের করতে হবে। তারপর সময় মতো আবেদন করতে হবে ভিসার জন্য। তবে পূর্বের থেকে বর্তমানে ভিসার খরচ অনেকটা বূদ্ধি পেয়েছে। আর যদি রোমানিয়া যাওয়ার জন্য অনলাইনে ভিসার জন্য আবেদন করতে চান। তাহলে এই https://www.visahq.com/romania/ প্রবেশ করে আবেদন করুন।

এছাড়াও এলাকায় পরিচিত দালালদের দ্বারা ভিসার জন্য আবেদন করতে পারেন। তবে অবশ্যই  কোন দালাল দ্বারা ভিসার জন্য আবেদন করলে সতর্ক থাকবেন। কেননা অনেক দালাল রয়েছেন যারা নির্দিষ্ট মূল্যের থেকে অনেক বেশি টাকা আদায় করে থাকে। অনলাইনে অথবা সরকারিভাবে বা কোন দালালদের দ্বারা রোমানিয়া যাওয়ার জন্য আবেদন করুন।

সরকারি ভাবে রোমানিয়া যাওয়ার উপায়

অনেকেই বলবে আপনি বাংলাদেশ থেকে সরকারি ভাবে রোমানিয়া যেতে পারবেন না। আপনি বাংলাদেশ থেকে সরকারি ভাবে রোমানিয়া যেতে পারবেন। এবং বাংলাদেশ থেকেই রোমানিয়া যাওয়ার জন্য আবেদন করতে পারবেন। এক্ষেত্রে সরকারি ভাবে রোমানিয়া যাওয়ার জন্য আবেদন করতে হলে আপনাকে এই ১.http://www.probashi.gov.bd/ ২.http://www.boesl.gov.bd/  দুটি ওয়েবসাইটে প্রবেশ করে রোমানিয়া যাওয়ার জন্য ভিসাগুলো এ সম্পর্কে জানতে পারেন। 

রোমানিয়া ওয়ার্ক পারমিট ভিসা যেতে কত টাকা লাগে

ওয়ার্ক পারমিট ভিসা হচ্ছে কাজের অনুমতি পত্র। অর্থাৎ আপনি যদি রোমানিয়ার ওয়ার্ক পারমিট ভিসা পেতে চান। তাহলে দুটি উপায়ে ওয়ার্ক পারমিট ভিসা পেতে পারবেন প্রথম হচ্ছে সরকারি ভাবে। দ্বিতীয় হচ্ছে কোন আইনজীবীর মাধ্যমে। এছাড়া বিভিন্ন প্রক্রিয়ায় আপনি রোমানিয়ার ওয়ার্ক পারমিট ভিসা পেয়ে যাবেন। এবং রোমানিয়া ভ্রমণ করতে পারবেন।

অতএব আপনি যদি রোমানিয়া যেতে ওয়ার্ক পারমিট ভিসা সংগ্রহ করতে চান এক্ষেত্রে আপনাকে অনেকটা পরিশ্রম করতে হবে। এবং এ বিষয়ে রোমানিয়া যেতে সর্বোচ্চ ৭ থেকে ৮ লক্ষ টাকা খরচ হবে। পূর্বে ওয়ার্ক পারমিট ভিসা পেতে অনেক কম টাকা খরচ হতো। কিন্তু বর্তমানে আর আমার ৭ থেকে ৮ লক্ষ টাকা প্রয়োজন হয়।

রোমানিয়া সটুডেন্ট ভিসা যেতে কত টাকা লাগে

কোন দেশে স্টুডেন্ট ভিসা পেয়ে গেলে অনেক সুবিধা পাওয়া যায়। পড়াশোনা পাশাপাশি আপনি সেখানে গিয়ে অনেক কাজ করতে পারবেন। অর্থাৎ এই স্টুডেন্ট ভিসায় যদি রোমানিয়া পৌঁছাতে চান সর্বোচ্চ সর্বোচ্চ আপনার ৪ থেকে ৫ লক্ষ টাকা খরচ হতে পারে। তবে যদি স্কলারশিপ নিয়ে রোমানিয়া স্টুডেন্ট ভিসায় পৌঁছে থাকেন তাহলে এই খরচ অনেক অংশে কম হয়ে যাবে। 

রোমানিয়া টুরেষ্ট ভিসা যেতে কত টাকা

টুরিস্ট ভিসায় রোমানিয়া যেতে হলে বেশ কিছু নিয়ম এর মধ্য দিয়ে যেতে হয়। তবে আপনি কয়েকটি মাধ্যম ব্যবহার করে রোমানিয়ার টুরিস্ট ভিসার জন্য আবেদন করতে পারবেন। এবং টুরিস্ট ভিসা তৈরি করে নিতে পারবেন। তবে জেনে রাখা আবশ্যক সর্বনিম্ন আপনাকে চার থেকে পাঁচ লক্ষ টাকা বাজেট রাখতে হবে রোমানিয়া টুরিস্ট ভিসা সংগ্রহ করতে। 

রোমানিয়া বিজনেস ভিসা ২০২৩

যদি রোমানিয়ায় বিজনেস ভিসায় যেতে চান তাহলে সর্বনিম্ন আপনাকে ৭ থেকে ৮ লক্ষ টাকা বাজেট রাখতে হবে। অর্থাৎ ভিসা তৈরি করতে এবং ওই দেশে পৌঁছাতে এই পর্যন্ত সর্বমোট আপনাকে ৭ থেকে ১০ লক্ষ টাকা খরচ হতে পারে।

তবে সরকারি ভাবে গেলে এই রোমানিয়া বিজনেস ভিসার খরচ অনেকাংশে কম হতে পারে। আর যদি কোন প্রাইভেট কোম্পানি বা দালালদের দ্বারা যেতে চান তাহলে অবশ্যই আপনাকে অনেক বেশি টাকা বাজেট রাখতে হবে। 

রোমানিয়া গার্মেন্টস ভিসা যেতে কত টাকা লাগে

প্রতি বছরের রোমানিয়া গার্মেন্টস এর জন্য বিভিন্ন কর্মী নিয়োগ দিয়ে থাকেন। তো এক্ষেত্রে বাংলাদেশ থেকে বহু সংখ্যক কর্মী রোমানিয়া পৌঁছে থাকেন। তবে আপনি যদি গার্মেন্টসের কাজের জন্য রোমানিয়া ভিসা তৈরি করতে চান। তাহলে আপনাকে অনেক টাকা খরচ করতে হবে। অর্থাৎ ভিসা থেকে শুরু করে যাবতীয় খরচ গার্মেন্টস ভিসায় যেতে কত টাকা লাগে। তা এখানে সম্পূর্ণভাবে উল্লেখ করা হয়েছে।

তবে যদি গার্মেন্টসের কাজের জন্য ভালো কোন সেক্টরে যেতে পারেন তাহলে প্রতি মাসে ভালো টাকা ইনকাম করতে পারবেন। বর্তমানে এমন অনেকে রয়েছেন যারা রোমানিয়া গার্মেন্টস ভিসায় কাজ করছেন। এবং প্রতি মাসে অনেক টাকা পর্যন্ত ইনকাম করছেন।

তবে বর্তমানে যারা রোমানিয়া গার্মেন্টস ভিসা পেতে যাচ্ছেন তাদের অবশ্যই সর্বনিময় তার থেকে ৫ লক্ষ টাকা খরচ করতে হবে। এবং কিছু কিছু দালালদের খপরে পড়ে তো অনেকেই ৮ থেকে ১০ লক্ষ টাকা সাধারণ মানুষদের কাছে কি নিয়ে থাকেন। তাই অবশ্যই কোন দালাল দ্বারা রোমানিয়া গার্মেন্টস ভিসার সংগ্রহ করতে চাইলে পরিচিত কোন দালালের সাথে যোগাযোগ করুন।

এ গার্মেন্টস বিষয় সর্বনিম্ন বেতন ৩০ থেকে ৪০ হাজার টাকা। তবে সেক্টর অনুযায়ী গার্মেন্টস ভিসার বেতন  অনেকাংশে বৃদ্ধি পেতে পারে। তবে এই গার্মেন্টস ভিসায় যেতে ৭ থেকে ১০ লক্ষ টাকা বাজেট এখন তাহলেই আপনি খুব সহজে রোমানিয়া পৌঁছাতে পারবেন।

রোমানিয়া ড্রাইভিং ভিসা যেতে কত টাকা লাগে

কি কাজ করছেন, এবং কত ঘন্টা কাজ করছেন তার উপর সম্পূর্ণ নির্ভর করে বেতনের পরিমাণ। তবে আপনি যদি রোমানিয়ার ড্রাইভিং বিষয় সেখানে যেতে চান তবে ভালো টাকা ইনকাম করতে পারবেন। তবে তার আগে জেনে রাখু*ন বাংলাদেশ থেকে রোমানিয়ার ড্রাইভিং রিসার্চ যেতে বর্তমানে কত টাকা লাগে।

তবে কেউ যদি রোমানিয়াতে ড্রাইভিং করতে চান তাহলে অবশ্যই গাড়ি চালানোর জন্য বিদেশী চালকদের একটি আন্তর্জাতিক ড্রাইভিং লাইসেন্স (IDL) থাকতে হবে। তবে বর্তমানে কেউ যদি রোমানিয়ার ড্রাইভিং  ভিসায় যেতে চান তাহলে অবশ্যই তাকে ৮ থেকে ১২ লক্ষ টাকা খরচ করতে হবে। পূর্বে ৪ থেকে ছয় ৬ টাকা হলে রোমানিয়ার ড্রাইভিং ভিসায় যাওয়া যেত।

রোমানিয়া যেতে কত টাকা লাগে

সাধারণভাবে একটি দেশে যেতে কত টাকা লাগে তা নির্দিষ্ট করে বলা অসম্ভব। তবে বলা সম্ভব তখন, আর যখন আপনি আপনার ভিসা নির্ধারণ করবেন, এবং কতদিন সেখানে থাকবেন এবং কোন কাজের জন্য যাচ্ছেন তার ওপর। ধরুন আপনি যদি ড্রাইভিং ভিসায় রোমানিয়া যেতে চান এক্ষেত্রে ৮ থেকে ১২ লক্ষ টাকা খরচ হতে পারে।

আবার গার্মেন্টস বিষয়ের মানে যেতে চাইলে আপনাকে ৮ থেকে ৯ লক্ষ টাকা খরচ করতে হবে। আর যদি স্টুডেন্ট ভিসা যেতে চান তাহলে সরকারিভাবে বিষয়গুলো পেয়ে যাবেন তাই চার থেকে ছয় লক্ষ টাকা হলেই সকল প্রক্রিয়া সমাধান করতে পারবেন। এছাড়াও আরো ভিন্ন রকমের ক্যাটাগরি পাওয়া যায় যা বাংলাদেশ থেকে রোমানিয়ার যাওয়ার জন্য।

রোমানিয়া যেতে কত বয়স লাগে

বাংলাদেশের নিয়ম অনুযায়ী ১৮ বছর বয়সী ছেলেমেয়েদেরকে প্রাপ্তবয়স্ক বলে গণ্য করা হয়। আর যদি রোমা নিয়ে যেতে চান তাহলে অবশ্যই সর্বনিম্ন আপনাকে ১৮ বছর হতে হবে। কেননা ওই দেশে শ্রমিকদেরকে ১৮ বছরের নিচে কোন ব্যক্তিকে শ্রমিক হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হয় না। অবশ্যই রোমানিয়া যেতে হলে আপনার বয়স ১৮ হতে হবে।

রোমানিয়া বেতন কত

আপনাদের কে স্পষ্ট ধারণা দিয়ে থাকি, রোমানিয়া কাজের উপর বেতন নির্ধারণ করা হয়। তবে সর্বনিম্ন ৩০ থেকে ৬০ হাজার টাকা আপনার বেতন নির্ধারণ করা হবে। তবে সম্পূর্ণ কোন কাজ করছেন তার উপর ভিত্তি করে। এবং সর্বোচ্চ ১ লাখ থেকে দেড় লক্ষ টাকার বেতন হতে পারে।

রোমানিয়া যেতে কি কি ডকুমেন্টস লাগে

এই মানে যেতে বহু কাগজপত্রের প্রয়োজন হয়। তবে প্রত্যেকটি ভিসার জন্য আলাদা আলাদা কাগজপত্রের প্রয়োজন হয়। এক্ষেত্রে সাধারণভাবে একজন ব্যক্তির রোমানিয়া যেতে কি কি কাগজপত্র লাগে তা এখানে উল্লেখ করা হলো। অর্থাৎ নিচে দেওয়া উল্লেখিত কাগজগুলো ছাড়া আপনি কখনোই রোমানিয়া যাওয়ার জন্য ভিসা আবেদন করতে পারবেন না।

  • সর্বপ্রথম আপনার পাসপোর্ট থাকতে হবে।
  • আপনার ভিসা তৈরি করতে হবে।
  • আপনার ছবি লাগবে পাসপোর্ট সাইজের অথবা সেই নিয়ম অনুযায়ী।
  • পুলিশ ক্লিয়ারেন্স সার্টিফিকেট লাগবে।
  • আপনার জাতীয় পরিচয় পত্র অথবা পাসপোর্ট হলে চলবে।
  • কি কাজে যাচ্ছেন সেই কাজের আমন্ত্রণ পত্র থাকতে হবে। কোম্পানি বেদে কাগজপত্র।
  • কোথায় থাকবেন অর্থাৎ থাকার ব্যবস্থা সম্পর্কিত তথ্য উল্লেখ করতে হবে।
  • এমনকি আদালতের অনুমোদন পত্র থাকতে হবে।
  • কোন কোম্পানিতে কাজ করতে যাচ্ছেন তার নিশ্চিত পত্র এবং দায়িত্ব পাত্র থাকতে হবে।

বাংলাদেশ থেকে রোমানিয়া বিমান ভাড়া কত

এ বাংলাদেশ থেকে যেহেতু বিভিন্ন ক্যাটাগরির বিমান রোমানিয়া পৌঁছে থাকেন। এক্ষেত্রে বিমানের উপর নির্ভর করে বিমান ভাড়া নির্ধারিত। যেমন ইকোনমি ক্লাসের বিমান, বিজনেস ক্লাসের বিমান এবং ফার্স্ট ক্লাসের বিমান পেয়ে যাবেন।

বর্তমানে পূর্বের থেকে আন্তর্জাতিক যে কোন রুটে বিমান ভাড়া অনেক বৃদ্ধি পেয়েছে। তো সর্বনিম্ন বিমান ভাড়া ৪০ হাজার থেকে ৬০ হাজার টাকা। তাই সম্পূর্ণ পোস্ট বিস্তারিত দেখু*ন আশা করা যায় রোমানিয়া যাওয়ার জন্য সঠিক তথ্য গুলো জানতে পারবেন।

রোমানিয়া ১ টাকা বাংলাদেশের কত টাকা?

বাংলাদেশ থেকে বহু গুণে অর্থনৈতিক দিক দিয়ে রোমানিয়া অনেক বেশি উন্নত। যেমন বাংলাদেশের থেকে রোমানিয়ার টাকার মান অনেক বেশি। এক্ষেত্রে যদি রোমানিয়া টাকার মান আপনি জেনে নিতে পারেন তাহলে ওই দেশের সাথে বাংলাদেশের টাকার একটা পার্থক্য তৈরি করতে পারবেন। যেমন আজকের সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী রোমানের এক টাকা সমান বাংলাদেশের ২৪ টাকা ৩১ পয়সা।

শেষ কথা

ইউরোপের এই দেশ রোমানিয়া যাওয়ার জন্য কি কি প্রক্রিয়া অবলম্বন করতে হয়। এবং রোমানিয়া ভিসার দাম কত তা নিয়ে বিস্তারিত আজকের আলোচনা সম্পন্ন করা হয়েছে। আশা করতেছি এই পোস্ট থেকে আপনারা অনেক বেশি উপকৃত হয়েছেন। এবং জানতে পেরেছেন রোমানিয়া যেতে কত টাকা লাগে।  যদি পোস্ট থেকে আপনি উপকৃত হয়ে থাকেন তাহলে অবশ্যই অন্যদের মাঝে এই পোস্ট শেয়ার করে দিন। ধন্যবাদ